Foto

Please Share If You Like This News

Buffer Digg Facebook Google LinkedIn Pinterest Print Reddit StumbleUpon Tumblr Twitter VK Yummly

বাংলাদেশে নবনিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার বলেছেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকেই নিজ দেশে নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। এবং রোহিঙ্গাদের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন হতে হবে নিরাপদ এবং স্বেচ্ছামূলক। এ লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্র সরকার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে নিয়ে কাজ করছে।


তিনি আজ বৃহস্পতিবার সকালে কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সংক্ষিপ্ত ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন।



মার্কিন রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, দ্রুত সময়ে বিপুল পরিমাণ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে কক্সবাজারের পরিবেশসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পরিবেশের অপূরণীয় ক্ষতি পুনরুদ্ধারে যুক্তরাষ্ট্র সরকার সহায়তা করবে। শুধু রোহিঙ্গাদের জন্য নয়, কক্সবাজারের স্থানীয় জনগণের জন্যও যুক্তরাষ্ট্র সরকার সহায়তা অব্যাহত রাখবে।

বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে মানবিকতার পরিচয় দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকার ও স্থানীয় জনগণের প্রশংসা করেন তিনি।

তিন দিনের সফরের শেষ দিনে আজ সকাল ১০টায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়ে যান। সেখানে আরআরআরসি কর্মকর্তাদের সাথে দেড় ঘন্টাব্যাপী বৈঠক করেন। এর পর কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে যান মার্কিন রাষ্ট্রদূত। সেখানে জেলা প্রশাসকসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেন তিনি। এরপর তিনি জেলা পুলিশ প্রশাসনের সাথেও বৈঠক করেন।

গত মঙ্গলবার সকালে বিমানযোগে তিনদিনের সফরে কক্সবাজার পৌঁছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। ওই দিন বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুনধুম তুমব্রু সীমান্তের শূন্য রেখার কোনারপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প, বালুখালী ট্রানজিট ক্যাম্প, কুতুপালং ও বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।

বুধবার টেকনাফের লেদা, নয়াপাড়া ও শামলাপুর রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি নির্যাতিত রোহিঙ্গা, ক্যাম্পে দায়িত্বরত সরকারি ও আন্তর্জাতিক সংস্থার কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেন। এছাড়াও ইউএসএআইডির আর্থিক সহায়তায় পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত।

তিন দিনের সফর শেষে আজ দুপুরে তিনি বিমানযোগে কক্সবাজার ত্যাগ করেন।

bottom