Foto

Please Share If You Like This News

Buffer Digg Facebook Google LinkedIn Pinterest Print Reddit StumbleUpon Tumblr Twitter VK Yummly

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত ও তদন্তাধীন কোনো ব্যক্তির অংশগ্রহণের বিরোধিতায় দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে কোনো সুপারিশ করা হবে না। দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ সোমবার নিজের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, "এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে নির্বাচন কমিশন। আমরা স্বতঃপ্রোণদিত হয়ে ইসিকে কিছু বলব না বা সুপারিশ করব না। এটা তাদের বিষয়। সাজাপ্রাপ্তদের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে।"


আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, "যারা অবৈধ সম্পদের মালিক নির্বাচনের পরে আমরা তাদের বিষয়ে অনুসন্ধান করে দেখব। আমি বিশ্বাস করি যে, আমাদের যারা জনপ্রতিনিধি হবেন, তারা তাদের সম্পত্তির হিসাব হলফনামায় সঠিকভাবেই দেবেন। যদি কেউ সঠিক তথ্য না দেন, সেজন্য কমিশনের ব্যবস্থা থাকবে, ডেফিনেটলি।”

বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী, ফৌজদারি মামলায় কারও ন্যূনতম দুই বছর কারাদণ্ড হলে তিনি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অযোগ্য হবেন। কিন্তু বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে এবং উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ ও নজির রয়েছে।

দুর্নীতির দুই মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কি না- সে প্রশ্ন ঘুরে ফিরে আসছে।

বিএনপি নেতারা আশা করছেন, এই দুই মামলায় সাজার রায় স্থগিত হলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদার নির্বাচনে অংশগ্রহণের পথ তৈরি হবে। ইতোমধ্যে তার নামে তিনটি আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনে রেখেছেন তারা।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতারা বলে আসছেন, দণ্ডিত হওয়ায় খালেদা জিয়া নির্বাচন করার যোগ্যতা হারিয়েছেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ইকবাল মাহমুদ বলেন, "আমি মনে করি না কোনো দুর্নীতিবাজকে আমাদের দেশের মানুষ নির্বাচিত করবে। এটা আমার বিশ্বাস হয় না। যদি এমন কিছু হয় তাহলে আমরা আমাদের আওতায় আনার চেষ্টা করব এবং জ্ঞাতআয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনকারীদের চরিত্র জনসন্মুখে তুলে ধরব।"

দুর্নীতিকে হিমালয় পাহাড়ের মত একটি সমস্যা হিসেবে বর্ণনা করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, “আপনি যদি ডানে হাত দেন দুর্নীতি, বামে হাত দেন সেখানেও দুর্নীতি। সেজন্যই বলি, শুধু আমরা একা হইচই করলে হবে না, আপনাদের লাগবে, সরকারকে লাগবে, সবাইকে লাগবে। আমরা চাই সুন্দর দেশ। দুর্নীতিমুক্ত একটি দেশ। আমাদের দেশের ইজ্জ্বত যদি চান, তাহলে একযোগে কাজ করতে হবে।"

bottom