Foto

Please Share If You Like This News

Buffer Digg Facebook Google LinkedIn Pinterest Print Reddit StumbleUpon Tumblr Twitter VK Yummly

ব্যস্ততার কারণে আমরা সব সময় সব কাজ নিজের মতো করে করতে পারি না।সময়ের অভাবে সব কাজে তাড়াহুড়ো করতে হয়।কিন্তু আপনার এই তাড়াহুড়ো অনেক সময় বিপদ ডেকে আনতে পারে।


মনে করেন আপনি হয়তো বাজারে গিয়েছেন মাছ, মাংস, কাঁচা সবজি কেনার জন্য। কিন্তু হাতে সময় কম। এখনকার বেশিরভাগ ব্যবসায়ীরা ক্রেতার কথা তেমন চিন্তা করেন না। তারা শুধু নিজের পকেট ভরাতে ব্যস্ত। তাই বাজারে গিয়ে তাড়াহুড়ো করে আপনি হয় ভুলে এমন মাংস এনেছেন যে পশু-পাখির ভয়াবহ কোনো রোগ ছিল।

বেশিরভাগ খাবারে যোগ হয়েছে ভেজাল। খাদ্যে বিষক্রিয়া বা ভেজালের উপস্থিতি প্রতি দিনই আমাদের মৃত্যুর দিকে এগিয়ে দিচ্ছে। আসুন জেনে নেই কীভাবে চিনবেন ক্যানসার আক্রান্ত পশু-পাখির মাংস।

মাংসের রঙ

মাংস কেনার সময় প্রথমেই দেখুন রঙ লালচে বা গোলাপি। রঙ লালচে বা গোলাপি হলে ধরে নিতে হবে মাংস টাটকা। কিন্তু ধূসর মাংস মানেই তা বাসি।

এবার এই লালচে বা গোলাপি মাংসের গায়ে হঠাৎ কোনও কোনও জায়গায় কিছুটা অংশ জুড়ে ধূসর বা ফ্যাকাশে রঙের কোনও দাগ আছে কি না লক্ষ্য করুন। তেমন দাগ থাকলে আগে বাদ দিন সেই মাংস। সাধারণত, ক্যানসার আক্রান্ত পশুর মাংসে এই রকম দাগ দেখা যায়।

কেনার আগে মাংস উল্টেপাল্টে দেখুন

মাংস কেনার আগে ভালমতো উল্টেপাল্টে দেখুন। বাড়তি বা অস্বাভাবিক মাংসপিণ্ডের অস্তিত্ব রয়েছে কি? তা হলে এই মাংসে ক্যানসার জাতীয় অসুখের বীজ থাকার সম্ভাবনা খুবই বেশি।

গরম পানি

মাংসই বাড়িতে এনে ধোওয়ার পর কিছুক্ষণ গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এতে মাংস নরমও হবে, তা ছাড়া কোনও ছোটখাটো সংক্রমণ থাকলে তাকেও এড়ানো যাবে।

তবে ক্যানসার মতো বড় অসুখ ঠেকাতে এই পদ্ধতি অবলম্বন করে কোনও লাভ নেই। এক্ষেত্রে উপরের পদ্ধতি অবলম্বন করা উচিত।

bottom