Foto

Please Share If You Like This News

Buffer Digg Facebook Google LinkedIn Pinterest Print Reddit StumbleUpon Tumblr Twitter VK Yummly

যুক্তরাজ্যের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মা রানি এলিজাবেথ দ্য কুইন মাদার তাঁকে উপদেশ দিয়েছিলেন, ‘কখনো অভিযোগ কোরো না, কখনো ব্যাখ্যাও কোরো না।’ মায়ের উপদেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করেন রানি। তাঁর ব্যক্তিগত জীবনের অনেক কিছুই মানুষের অজানা। এ রকমই এক রহস্য, রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ দুটি স্বাক্ষর ব্যবহার করেন। স্বাক্ষর দুটি দেখলে কারও বিভ্রান্তি হতে পারে এই ভেবে যে যুক্তরাজ্যের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ বুঝি ‘দুজন ব্যক্তি’।


রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের দুটি স্বাক্ষরই সম্পূর্ণ আলাদা। দাপ্তরিক কাজের সময়, যেমন সরকারি নথিপত্রে কিংবা রাষ্ট্রীয় সফরে গিয়ে অতিথি বইয়ে সইয়ের সময় তিনি ’এলিজাবেথ আর’ নামে স্বাক্ষর করেন। ’আর’-এর পূর্ণ রূপ ’রেজিনা’। লাতিন ভাষায় রেজিনা অর্থ রানি। এই সই করে নিচে একটি দাগ টানেন তিনি। অন্যদিকে যখন তিনি রানি হিসেবে কাজ করেন না, তখন তাঁর ডাকনামে স্বাক্ষর করেন। রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের ডাকনাম ’লিলিবেট’। তাঁর এই নাম শুধু পরিবার ও বন্ধুবান্ধবের জন্য সংরক্ষিত।

লিলিবেট নামে দাদি রানি মেরিকে লেখা রানি এলিজাবেথের অনেক পুরোনো একটি চিঠি সম্প্রতি প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ সাময়িকী হ্যালো। এদিকে গত সপ্তাহে লন্ডনের সায়েন্স মিউজিয়াম পরিদর্শনে যান দ্বিতীয় এলিজাবেথ। সেখানে তোলা কিছু ছবি তিনি পোস্ট করেছেন ইনস্টাগ্রামে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটিতে এটাই তাঁর প্রথম পোস্ট। ওই পোস্টের নিচে তিনি ’এলিজাবেথ আর’ নামে সই করেছেন।

এদিকে রানি এলিজাবেথকে সম্বোধনের ক্ষেত্রে অনেকে ভুল করে থাকেন। ’হার রয়্যাল হাইনেস’ ও ’হার ম্যাজেস্টি’র মধ্যে অনেকেই গুলিয়ে ফেলেন। দুটি সম্বোধনই দেশ-বিদেশে তাঁর নামের সঙ্গে ব্যবহার হয়ে থাকে। কিন্তু ’হার হাইনেস’ বা ’ইওর হাইনেস’ ব্যবহার করা হয় ব্রিটিশ রাজপরিবারের যেকোনো নারী সদস্যকে সম্বোধন করতে। তবে স্বয়ং রানিকে বোঝাতে বলতে হয় ’হার ম্যাজেস্টি’।

মায়ের মৃত্যুর পর ১৯৫২ সালে যুক্তরাজ্যের সিংহাসনে বসেন রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ। তিনি ব্রিটিশ সিংহাসনে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় আসীন থাকা ব্যক্তি।

bottom