Foto

Please Share If You Like This News

Buffer Digg Facebook Google LinkedIn Pinterest Print Reddit StumbleUpon Tumblr Twitter VK Yummly

ডায়াবেটিস একটি নীরব ঘাতক। এটি এমন একটি রোগ যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের অসুস্থতা বাড়িয়ে তোলে। রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে গেলে শরীরে নানা ধরনের জটিলতা তৈরি হয়। নিয়মিত ওষুধ খেলে, শরীরচর্চা করলে এবং নিয়ম মেনে চললে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।


তবে এটা এমনই একটি রোগ যা পুরোপুরি নিরাময় করা সম্ভব নয়। এ কারণে এই রোগ প্রতিরোধে সচেষ্ট থাকা জরুরী। শরীরে শর্করা বা ব্লাড সুগারের মাত্রা বেড়ে গেলে কিছু লক্ষণ প্রকাশ পায়। এসব লক্ষণ প্রকাশ পেলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া উচিত। যেমন-

১. চিকিৎসকদের মতে, শরীরে শর্করার মাত্রা বেড়ে গেলে তা কিডনিতে চাপ সৃষ্টি করতে থাকে শরীর থেকে অতিরিক্ত শর্করা বের করার জন্য। এ কারণে ঘন ঘন প্রস্রাব পায়।

২. শরীরে শর্করার মাত্রা বেড়ে গেলে খুব অল্পতেই সবাই হাঁপিয়ে ওঠে। কারণ শর্করার কারণে শরীরে পানির ঘাটতি হয়। আর ডিহাইড্রেশনের ফলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে।

৩. হাত ও পায়ের আঙুল বা পুরো হাত অবশ বোধ করা শরীরে সুগারের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার অন্যতম প্রধান লক্ষণ।

৪. শরীরে শর্করার মাত্রা বেড়ে গেলে দৃষ্টিশক্তির সমস্যা হতে পারে।

৫. যখন শরীর থেকে সুগার বের করে দেয়ার জন্য কিডনিতে চাপ পড়ে তখন ঘন ঘন প্রস্রাব পায়। এতে শরীরে পানির ঘাটতি হতে থাকে। তখন ঘন ঘন পানি পিপাসা পায়।

৬. শরীরের কোনও অংশ যদি কেটে বা ছুলে যায় এবং সেটা শুকাতে অনেক বেশি সময় লাগে তাহলে সেটাও ব্লাড সুগার বেড়ে যাওয়ার লক্ষণ হতে পারে।

৭. হঠাৎ করে শরীরের ওজন অধিক মাত্রায় কমতে থাকলে সেটাও সুগারের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার কারণ হতে পারে।

bottom