Foto

Please Share If You Like This News

Buffer Digg Facebook Google LinkedIn Pinterest Print Reddit StumbleUpon Tumblr Twitter VK Yummly

ইসলাম ধর্মকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য বিশ্বজুড়ে পরিচিত ব্রিটিশ রাজনৈতিক ভাষ্যকার ও লেখক মিলো ইয়ান্নোপোলোসকে অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। আজ শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর ইসলাম ধর্মকে ‘বর্বর’ এবং ‘অ্যালিয়েন সংস্কৃত’ বলে মন্তব্য করেন তিনি। এই মন্তব্যের পর অস্ট্রেলিয়া সরকার তার বিরুদ্ধে দেশটিতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে


চলতি বছরের শেষের দিকে অস্ট্রেলিয়ায় একটি অনুষ্ঠানে এই ব্রিটিশ ভাষ্যকারের বক্তৃতা করার কথা ছিল। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া সরকার ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করায় ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম রেইটবার্ট নিউজের সাবেক এই সম্পাদক সেই অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারবেন না।

এর আগে ২০১৫ সালে ডিসেম্বরে নারীদের ’পরগাছার’ সঙ্গে তুলনা করে ব্যাপক বিতর্কের জন্ম দেন ব্রিটিশ এই বক্তা। চলতি মাসের শুরুর দিকে অস্ট্রেলিয়ার স্বরাষ্ট্র দপ্তর প্রাথমিকভাবে মিলোকে ভিসা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। দপ্তরের এই সিদ্ধান্তে সমর্থন জানায় সরকারের জ্যেষ্ঠ মিত্ররা। পরে উদারপন্থীদের দাবির মুখে তাকে ভিসা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।

কিন্তু গতকাল ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে ভয়াবহ বন্দুক হামলায় ৪৯ জনের প্রাণহানির পর আবারো বিতর্কিত মন্তব্য করেন মিলো। তার এ মন্তব্যের প্রতিবাদে স্থানীয় সময় শনিবার সকালে আগের নেওয়া সিদ্ধান্ত বাতিল করে আবারো মিলোর অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

শুক্রবার জুমআর নামাজের সময় অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত উগ্র ডানপন্থী শেতাঙ্গ সন্ত্রাসী ব্রেন্টন ট্যারেন্ট আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালান। মসজিদের ভেতরে ঢুকে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে ৪৯ জনকে হত্যা করেন তিনি। এতে আহত হয় আরও ৫০ জন।

ক্রাইস্টচার্চে হামলার পর ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে ইসলাম ধর্মকে নিয়ে তিনি আপত্তিকর মন্তব্য করে বলেন, ’চরম বামপন্থী, আদিম এবং অ্যালিয়েন ধর্মীয় সংস্কৃতির প্রতিষ্ঠার কারণে ক্রাইস্টচার্চের মতো হামলার ঘটনা ঘটছে।’

ক্রাইস্টচার্চের হামলাকারী ট্যারেন্ট যুক্তরাষ্ট্রের রক্ষণশীল রাজনৈতিক অ্যাক্টিভিস্ট ক্যানড্যাসি ওয়েনসের দ্বারা প্রভাবিত বলে তার দেওয়া ইশতেহারে উল্লেখ করেছেন। ট্যারেন্টের এই ইশতেহারের পক্ষে সাফাই গেয়ে মিলো ফেসবুকে লেখেন, ’নিউজিল্যান্ডে যা ঘটছে সেজন্য মিলো ইয়ান্নোপোলোসের কিছুই করার নেই। তবে প্রাণঘাতী এই হামলার জন্য বামপন্থীরা দায়ী।’

এদিকে, ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার ঘটনায় মুসলিম অভিবাসনকে দায়ী করে বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে ডিম হামলার শিকার হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার কট্টর ডানপন্থী এক সিনেটর। শুক্রবার ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে হামলার পর আপত্তিকর মন্তব্যের প্রতিবাদে শনিবার এক তরুণ অস্ট্রেলিয়ার ওই সিনেটরের মাথায় ডিম ভাঙেন।

bottom