Foto

Please Share If You Like This News

Buffer Digg Facebook Google LinkedIn Pinterest Print Reddit StumbleUpon Tumblr Twitter VK Yummly

ইউক্রেইন তাদের ভূখন্ডে ১৬ থেকে ৬০ বছর বয়সী রুশদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে। রাশিয়ার সঙ্গে উত্তেজনার প্রেক্ষাপটে জারি করা সামরিক আইনের আওতায় এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে কিয়েভ। তবে কেবল মানবিক কিছু কারণবশত রুশদেরকে ইউক্রেইনে ঢুকতে দেওয়া হতে পারে। যেমন: অন্ত্যষ্টিক্রিয়ায় অংশ নেওয়ার মত কোনো ক্ষেত্রে এ ছাড় মিলতে পারে। গত রোববার রাশিয়া বাহিনী অধিকৃত ক্রিমিয়া উপদ্বীপের কাছে ইউক্রেইনের নৌবাহিনীর তিনটি জাহাজ এবং ২৪ নাবিককে আটক করার পর রুশ আগ্রাসনের আশঙ্কা প্রকাশ করেন ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্ট পেট্রো পোরোশেঙ্কো।


ওই ঘটনার পরপরই ২৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত ইউক্রেইনের ১০ অঞ্চলে মার্শাল ল জারি করেন তিনি। আর এর আওতায়ই এখন তিনি ইউক্রেইনে রুশদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করলেন।

রাশিয়া বলেছে, এর পাল্টা পদক্ষেপ নেওয়ার কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই।

ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্ট পোরোশেঙ্কো রাজধানী কিয়েভে দেশের শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তা এবং প্রধান সীমান্তরক্ষীদের সঙ্গে বৈঠক করার পর রুশদের প্রবেশের ওপর ওই নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করেন।

এক টুইটে তিনি বলেন, ইউক্রেইনে প্রাইভেট আর্মি গড়ে তোলা ঠেকাতেই এ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

পূর্ব ইউক্রেইনে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে লড়াইয়ের জন্য ২০১৪ সালে যেমন রাশিয়া-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ইউনিট গড়ে উঠেছিল- সেকথাটি উল্লেখ করেন পোরোশেঙ্কো।

তাছাড়া, মার্শাল লর অধীনে থাকা অঞ্চলগুলোতে রুশ নাগরিকদের জন্য নিবন্ধন প্রক্রিয়াতেও কড়াকড়ি করা হবে বলে জানান তিনি।

গত মঙ্গলবার পোরোশেঙ্কো রাশিয়ার সঙ্গে ইউক্রেইনের পুরোদস্তুর যুদ্ধ বেধে যেতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, “আমাদের সীমান্ত বরাবর এলাকায় রাশিয়ার ট্যাংকের সংখ্যা তিনগুণ বেড়েছে।”

bottom